1. live@www.dainiksomoyerunnayan.com : news online : news online
  2. info@www.dainiksomoyerunnayan.com : দৈনিক সময়ের উন্নয়ন :
  3. mdzahidlama@gmail.com : zahid Hasan : zahid Hasan
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৮:৫০ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
বান্দরবানের সাংসদকে নিয়ে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে কাজী মুজিব এঁর বিবৃতি লামায় জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস-২০২৪ পালিত লামার কোয়ান্টাম কসমো স্কুল ও কলেজ জিমন্যাস্টদের ১৯টি পদক অর্জন লামায় দেশীয় অস্ত্রসহ সন্ত্রাসীকে আটক করেছে জনতা পল্লী বন্ধু উন্নয়ন সংস্থা’য় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি লামা চাম্বি উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের গভর্ণিং বডি নির্বাচন-২০২৪ এর তফসিল ঘোষণা লামায় লাখ টাকা জরিমানা দিয়ে ছাড় পেলেন ট্রাক লামা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিন পদে ৯ জন মনোনয়ন দাখিল করেছেন লামায় সরকারি অর্থে করা পানির উৎস ধ্বংস রোধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামণা লামা ফাঁসিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১২ মেম্বারের অনাস্থা

বান্দরবানের সাংসদকে নিয়ে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে কাজী মুজিব এঁর বিবৃতি

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: বুধবার, ১ মে, ২০২৪
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

বান্দরবান সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-২৪ এ চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী একে এম জাহাঙ্গীর, বান্দরবানের সাংসদ বীর বাহাদুর উশৈসিং মহোদয়কে জড়িয়ে মিথ্যা বিবৃতি দেয়া ও প্রথম আলো পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক বিবৃতিতে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ এর চেয়ারম্যান কাজী মুজিব বলেন’ “প্রিয় বান্দরবানবাসি,
আসসালামু আলাইকুম/আদাব। বর্তমান ভার্চুয়াল দুনিয়ায় ফেইসবুক, ইউটিউব, টুইটার ভাইবার বা ইয়াহুর মতো সোস্যাল মিডিয়ায় লেখালেখির অভ্যাস আমার নাই এবং নেট দুনিয়ার সাথে আমার সম্পর্ক একেবারেই কম। অর্থাৎ নাই বললেই চলে।

তবুও মাঝেমধ্যে বন্ধু-বান্ধব ও সতীর্থরা তাদের মোবাইলে ফেইসবুক বা ইউটিউবে বিভিন্ন পোস্ট বা কমেন্টস আমাকে দেখান।

গতকাল (৩০ এপ্রিল) দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে বান্দরবান প্রতিনিধি বুদ্ধজ্যোতি চাকমার একটি লেখা আমার একজন বন্ধুর মোবাইলের মাধ্যমে আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে।

যার হেডলাইন ছিলো, “বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থীকে সমর্থনের অভিযোগ বীর বাহাদুরের বিরুদ্ধে।” লেখাটি পড়ে আমি অবাকও হইনি এবং মর্মাহতও হইনি।

বুদ্ধজ্যোতি চাকমা’র এই ধরনের লেখা নতুন নয়, এর পূর্বেও তিনি বহুবার এই ধরনের লেখা লিখেছেন। কেননা বীর বাহাদুর নামটি বুদ্ধজ্যোতি চাকমা’র জন্য আতঙ্কের। ইতিপূর্বে, পাহাড় কেঁটে পরিবেশ ধ্বংসের নামে বীর বাহাদুরের বিরুদ্ধে বুদ্ধজ্যোতি চাকমা একটি নিউজ করেছিলেন।

যার কারণে বীর বাহাদুরের প্রতিনিধি হিসেবে পরিবেশ আদালতের আসামীর কাঠগড়ায় আমাকে দাঁড়াতে হয়েছিলো। তিন মাস পরে পরিবেশ আদালতে আমি নির্দোষ প্রমাণিত হওয়ায় বেকসুর খালাস পাই। যাহার স্বাক্ষী জেলা আওয়ামী লীগের নেতা উজ্জ্বল কান্তি দাশ।

এবার আসি মূল কথায়; উপজেলা নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারণী হাইকমান্ড থেকে সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়েছে যে, “যারাই নির্বাচন করতে চায় স্বাচ্ছন্দ্যে করতে পারবে, তবে কোন দলীয় প্রতীক থাকবে না এবং আওয়ামী লীগের কোন এমপি ও মন্ত্রীদের আত্মীয়-স্বজন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবে না।

একাধিক প্রার্থীর ক্ষেত্রে এমপি-মন্ত্রী সহ উচ্চ পর্যায়ের কোনো নেতা এককভাবে কোন প্রার্থীর পক্ষে প্রচার-প্রচারণা করতে পারবেন না। সেই ক্ষেত্রে বান্দরবান সদর উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ কে এম জাহাঙ্গীর বর্তমান চেয়ারম্যান আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন।

এখানে আওয়ামী লীগের অন্য কোন প্রার্থী নেই। তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠন ও সাধারণ মানুষের কোন সমর্থন না পেয়ে গতকাল তার ফেইসবুক আইডি থেকে লাইভ ভিডিও বার্তার মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা থেকে সরে দাঁড়ানোর আল্টিমেটাম দিয়েছেন।

এখন কথা হলো, এ কে এম জাহাঙ্গীর বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং বর্তমান রানিং সদর উপজেলা চেয়ারম্যান। পাঁচ বছর তিনি চেয়ারম্যানি করেছেন। তিনি কেন জনবিচ্ছিন্ন হবেন…?? দলীয় নেতাকর্মীরা কেন তার থেকে দূরে সরে যাবে….??

মূলত, পাঁচ বছর চেয়ারম্যানি করা কালীন যেই ছেলেটি ওনার এপিএস হিসেবে রয়েছেন মোঃ কবির হোসেন সে বান্দরবান জেলা যুবদলের একজন নেতা। শুরুতেই এ কে এম জাহাঙ্গীর নিজ দল আওয়ামী লীগের সাথে বেইমানি করেছেন।

এবারের নির্বাচনে উনার প্রস্তাবকারী এবং সমর্থনকারী তাদের কোন দলীয় পরিচয় আছে কি না….?? একজন বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা ও আরেকজন আইনজীবী, যাদের কোন দলীয় পরিচয় নেই।

যিনি নিজেকে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী দাবি করেন তার জন্য প্রস্তাব ও সমর্থন করার জন্য একজনও কি আওয়ামী লীগের নেতা নাই….?? থাকবেইবা কি করে….!!

গত পাঁচ বছরে একজন আওয়ামী লীগের নেতাকে তিনি তার অফিসে নিয়ে এক কাপ চা খাইয়েছেন…?? উপরন্ত গত নিকট অতীত রমজানে শার্টের উপর লুঙ্গি পরে উপজাতি সেজে ভান্তেদেরকে দিন-দুপুরে পবিত্র রমজান মাসে দাওয়াত খাইয়েছেন। হয়তোবা নিজেও খেয়েছেন। বান্দরবানে জনশ্রুতি রয়েছে তিনি সবকিছু খেয়ে থাকেন।

প্রশ্ন হলো, আসলে তিনি কার…?? গত পাঁচ বছরে একাধিকবার ফেসবুক লাইভে এসে তিনি বক্তব্য দিয়েছেন, “সরকার তাকে কোন সহযোগিতা করছেন না। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট বিচার দিবেন এবং জনগণ নিয়ে মাঠে নামবেন।” এ কে এম জাহাঙ্গীর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে পারেন তো না-ই, আবার জনগণও এখন উনার সাথে নাই।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সরকারি বাসভবনটি দিনের বেলায় বন্ধ রেখে রাত ৯টা থেকে ৩টা পর্যন্ত খোলা থাকতো। রাতে ওখানে কারা আসতো স্থানীয় জনগণ তাদেরকে চিনতো না, ভিতরে কি হতো এটা আল্লাহ ছাড়া কেউ জানে না।

সাহায্যপ্রার্থীদের সব সময় বলতেন, উপজেলা বিধিমালয় সাহায্য দেয়ার কোন বিধান নাই। এহেন কর্মকাণ্ডে দলীয় নেতাকর্মীসহ জনগণ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন।

এখানে মাননীয় সংসদ সদস্য বীর বাহাদুরকে দোষারোপ করে প্রথম আলো পত্রিকায় বুদ্ধজ্যোতি চাকমা নিউজ করার কারণটি আসলে কি…? এটা জানার খুব ইচ্ছা।

বিগত ৪০ বছর যাবৎ বাবু বীর বাহাদুর এই অঞ্চলের প্রতিটা মানুষের সেবা করে আসছেন এবং তিনি বান্দরবানবাসীর কাছে অত্যন্ত প্রিয় একজন বিশ্বস্ত সেবক হিসেবে স্থান করে নিয়েছেন।

সাত সাতবার একাধারে এমপি নির্বাচিত হওয়া যার-তার কাজ নয়। উনার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে একটা মহল বাবু বীর বাহাদুরের সাদা কাপড়ে কালিমা লেপন করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

উল্লেখ্য যে , অপর প্রার্থী কুদ্দুস ভাই একজন সাদা মনের মানুষ। চারবার উপজেলায় চেয়ারম্যানী করে জনগণের সেবক হিসেবে স্বাক্ষর রেখেছেন। সত্যিকারার্থে সর্বস্তরের জনগণ প্রকৃতভাবে আবদুল কুদ্দুস ভাইকে চায়।

আবদুল কুদ্দুস বিএনপি থেকে স্থায়ীভাবে একজন বহিষ্কৃত নেতা। তিনি এখন কোন দলের নন, তিনি সকল জনগণের এবং জনগণ তাকেই ভালোবাসে। নির্বাচনে তিনিই নির্বাচিত হবেন ইনশাআল্লাহ।

বাবু বীর বাহাদুর আবদুল কুদ্দুস সাহেবকে সমর্থন দিয়েছেন বা কারো কাছে ভোট চেয়েছেন এইরকম কোন প্রমাণ কোথাও নেই। এখানে বীর বাহাদুরকে জড়ানো অনেক বড় ধরনের ষড়যন্ত্র বলে আমি মনে করি। আয়নার সামনে যার যার কর্মকাণ্ডের চেহারা নিজেরটা নিজের দেখা উচিত। সবচেয়ে বড় সত্য হলো, “যেমন কর্ম তেমন ফল” এটাই বড় সত্য।

সুতরাং সাধু সাবধান। সময়ই সবকিছু বলে দিবে। অন্যের জন্য খাদ করলে মনের অজান্তে হলেও সেই খাদে নিজেকেই পড়তে হয়। সকলে ভালো থাকবেন। আবদুল কুদ্দুস ভাইকে মটর সাইকেল মার্কায় ভোট দিবেন, বেঁচে থাকার জন্য ও সুস্থ্য থাকার জন্য দোয়া করবেন।”

আপনাদেরই বিশ্বস্ত খাদেম
_____কাজী মোঃ মজিবর রহমান

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

পুরাতন সংবাদ পড়ুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট